How to Proof Is There For A Life After Death | মৃত্যুর পর যে আরেকটি জীবন আছে তার প্রমান কি?

How to Proof Is There For A Life After Death?

মৃত্যুর পর যে আরেকটি জীবন আছে তার প্রমান কি?

মৃত্যুর পর যে আরেকটি জীবন আছে তার প্রমান কি? পবিত্র কুরআনে আল্লাহ্‌ তায়ালা বহু সংখ্যক বার মৃত্যুর পরের জীবনের কথা উল্লেখ করেছেন। এটি আমাদের ধর্মের অন্যতম মৌলিক এবং একটি প্রধান স্তম্ভ।

এটি অন্যতম একটি প্রধান বিষয় যা রাসুল (সাঃ) কুরাইশদের শিক্ষা দিয়েছিলেন। কারন কুরাইশরা বিশ্বাস করতো না যে মৃত্যুর পর আরেকটি জীবন রয়েছে।

আর আল্লাহ্‌ তায়ালা এই বিষয় টি বিভিন্ন ভাবে মানুষ কে বুঝিয়েছেন।

যৌক্তিক প্রমানের মাধ্যমে – আল্লাহ্‌ তায়ালা বলেন, মৃত যমীনের দিকে তাকাও যাকে আমি পূনরায় জীবন দান করি।

মৃত গাছের দিকে তাকাও, মরার পর সেগুলো আবার জীবন ফিরে পায়।

শক্তিশালী সকল সৃষ্টির দিকে তাকাও, তোমার নিজের জীবনের দিকে তাকাও।

নিশ্চয় যিনি তোমাকে প্রথমবার সৃষ্টি করেছেন, তিনি তোমাকে পূনরায় ও সৃষ্টি করতে পারবেন।

আল্লাহ্‌ তায়ালা যে প্রমান গুলো ব্যবহার করেছেন সেগুলো নৈতিক প্রমান।

আল্লাহ্‌ তায়ালা মহাগ্রন্থ আল কুরআনে বলেন, তোমরা কি মনে কর, আমি ধর্মভীরু ও ধর্মহীন কে অথবা সৎ এবং অসৎ ব্যক্তি কে একই রকম প্রতিদান দিবো?

এই পৃথিবীতে কখনো হাজার হাজার মানুষ কে খুন করা ব্যক্তিও পার পেয়ে যায়।

এই পৃথিবীতে চরম কোন পাপিষ্ঠ ব্যক্তি কেও মাঝে মাঝে দেখা যায় উন্নত জীবন যাপন করতে।

তাঁরা নিরপরাধ মানুষ কে নির্যাতন করে, হত্যা করে। এখন যদি মৃত্যুর পর কোন জীবন না থাকে, জান্নাত – জাহান্নাম না থাকে, বিচার দিবস না থাকে, তাহলে জীবনটা তো খুবি অন্যায্য হয়ে পড়ে।

ন্যায়ের আশ্রয় গ্রহণ করার তো আর কোন সুযোগ থাকেনা। কিন্তু আল্লাহ্‌ তায়ালা বলেছেন, তিনি ন্যায় বিচারক, তিনি সীমাহীন ন্যায় বিচারক।

আর তাই বিচার দিবস অবশ্যই সত্য। সেই বিচার দিবসে মানুষ কে তার ভাল কাজের জন্য পুরস্কৃত করা হবে। আর হ্যা, তাদের অন্যায় কাজের শাস্তি দেয়া হবে।

আবার ও বলছি মহাগ্রন্থ আল কুরআনে অসংখ্য আয়াত রয়েছে। কিন্তু দিন শেষে আপনাকে এটা বিশ্বাস করতে হবে। আমি আপনাদের কোন বৈজ্ঞানিক প্রমান দিতে পারব না, এমন কোন ইকুয়েশন দিতে পারবো না যা প্রমান করে যে, মৃত্যুর পর আরেকটি জীবন আছে।

কিন্তু আল্লাহ্‌ তায়ালা যথেষ্ট পরিমান যুক্তি ব্যবহার করেছেন, বহু উপায়ে আমাদের বুঝিয়েছেন পরকালিন জীবনের কথা।

এবং পরিশেষে আমরা বলতে পারি এটা হচ্ছে অদৃশ্য জগতের একটি জ্ঞান। আমাদের কে আল্লাহ্‌ তায়ালার কথায় বিশ্বাস করতে হবে।

সত্য কথা বলতে যদি এই জীবনের পর আর কোন জীবন না থাকে, তাহলে এই জীবনের তো কোন মানে হয় না। তাহলে এই জীবনের অর্থ কি? এতো দুঃখ কষ্টের মানে কি?

আমাদের এই অস্তিত্তের কি বা অর্থ আছে? প্রকৃতপক্ষে এই জীবনের পরে আরেকটি জীবন আছে বলেই তো আমাদের আশা আছে, জীবন টা অর্থ পূর্ণ মনে হয়, চিন্তার প্রতিটি ধাপে ধাপে এটি মিলে যায়, ঠিক যেভাবে আল কুরআন প্রমান করতে চায়।

তাই আমাদের বেশি বেশি কুরআন নিয়ে রিসার্চ করতে হবে, বড় বড় আলেমদের সান্নিদ্ধে জেতে হবে। যারা সঠিক ভাবে ইসলাম কে নিয়ে গবেষণা করে। শুধু কুরআন বা হাদিসের শাব্দিক অনুবাদ পড়লেই চলবে না, একটি আয়াত কোন পটভূমিতে কখন এবং কেন অবতীর্ণ হয়েছিল তাও জানতে হবে। এবং পরবর্তীতে সাহাবী বা তাবেয়িরা ঐ ঘটনায় বা ঐ রকম কোন পরিস্থিতিতে কি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। এবং কেন নিয়েছিলেন তাও জানতে হবে।

কারন আমরা বর্তমান যুগে আল্লাহ্‌ কে বেশি বেশি পাব এই আশায় আমরা এমন কিছু ভুল করি বা ফতোয়া দেই যা নিজেদের বা মানুষের বা যুগের সুবিধা অনুযায়ী হয়ে থাকে, যা অনেক সময় আমাদের অজান্তেই আমাদের শিরক এর দার প্রান্তে পৌঁছে দেয়।

তাই আমরা ইসলাম সম্পর্কে প্রতিটি জিনিষ প্রতিটি ফতোয়া কুরআন, হাদিস, ইজমা ও কিয়াস এই অনুসারে মানব। যাতে আমরা সঠিক পথে থেকে আল্লার নিকট জেতে পারি।

বিশ্বাস হচ্ছে, আমাদের ধর্মের অন্যতম একটি মৌলিক স্তম্ভ।

তাওহীদ, রিসালাত, আখিরাতঃ আল্লাহ্‌ কে বিশ্বাস করা, রাসুলদের বিশ্বাস করা এবং পরকালে বিশ্বাস করা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here